আমার কুষ্টিয়া

কুষ্টিয়া অতীতে অবিভক্ত ভারতের নদীয়া জেলার অংশ ছিলো। কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা এবং মেহেরপুর নিয়ে ১৯৪৭ সালে নতুন জেলার গঠিত হয়। বর্তমানে চুয়াডাঙ্গা এবং মেহেরপুর আলাদা আলাদা জেলা। কুষ্টিয়া জেলাতে ৭টি থানা (কুষ্টিয়া সদর, কুমারখালী, দৌলতপুর, মীরপুর, ভেড়ামারা, খোকসা এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়), ৪টি পৌরসভা, ৬১টি ইউনিয়ন, ৭১০ মৌজা এবং ৯৭৮টি গ্রাম রয়েছে।
দর্শনীয় স্খান: কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের কুঠিবাড়ী, লালন শাহের মাযার, মীর মশাররফ হোসেনের বাস্তিভটা, নফর শাহের মাযার, দরবেশ সোনা বন্ধুর মাযার, জঙ্গলী শাহের মাযার, মহিষকুন্ডি নীলকুঠি, কালীদেবী মন্দির ইত্যাদি। এছাড়াও ১০টি গণকবর, ১১টি স্মৃতিস্তম্ভ এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে স্মারক ভাস্কর্য ‘মুক্তবাংলা’।
১৮৬০ সালে বাংলাদেশ নীলবিদ্রোহ ব্যাপকতা লাভ করে এবং কুষ্টিয়া জেলার শালঘর মধুঘর নীলবিদ্রোহ ছিল বৃহত্তম ঘটনা। এ সময় কুষ্টিয়া জেলার সকল নীলচাষি সরকারের খাজনা দেয়া বন্ধ করে দেয়। এ ঘটনা তদন্তের জন্য ইংবেজী সরকার জি.জি মরিসন নামক একজন কর্মকর্তার নেতৃত্বে একদল সৈন্যকে সেখানে পাঠায়। এ অঞ্চলে কৃষকরা তাকে জানায় যে নীল করেরা তাদের জুলুম বন্ধ করলে তবেই তারা সরকারকে খাজনা দিতে রাজী থাকবে। মরিসন এই শর্তে রাজি হলে সৈন্যদলটি কলকাতায় ফিরে যায়।

Advertisements

One Response to “আমার কুষ্টিয়া”

  1. সুমন Says:

    ভাই আপনার বাড়ি কি কুষ্টিয়া জেলাতে?


Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: