ই-পেপার প্রদর্শন করতে যাচ্ছে এলজিফিলিপস

e-paper.jpgদক্ষিণ কোরিয়ার নতুন একত্রিভূত এলজিফিলিপস আগামী সপ্তাহের কনসিউমার ইলেক্ট্রোনিক্স শোতে (সিইএস) হাই ডেফিনেশন ১৪.৩ ইঞ্চি রঙিন ইলেক্ট্রোনিক পেপার বা ই-পেপার প্রদর্শন করবে। এই ডিসপ্লের আকার হবে এ৪ (8.27″ x ১১.৬৯”) সাইজের কাগজের সমান। 1280 x ৮০০ পিক্সেলের এই ডিসপ্লেতে থাকবে ১৬.৭ মিলিয়ন কালার। তবে গত বছরের (২০০৭) মে মাসে প্রদর্শিত ই-পেপারে মোট কালারের সংখ্যা ছিলো ৪০৯৬। এলজিফিলিপসের প্রদর্শিতব্য এই ই-পেপার তৈরীতে টিএফটি (থিন ফ্লিম ট্র্যানজিসটর) প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। এই ই-পেপার ৩০০ মাইক্রোমিটার পাতলা এবং এটি ১৮০ ডিগ্রি পর্যন্ত বাকাঁনো যাবে। এছাড়াও কোম্পানীর বি৫ (6.93″ x ৯.৮৪”) সাইজের মনো ই-পেপার প্রদশর্নের চিন্তা ভাবনা রয়েছে। এলসিডি থেকে ই-পেপারের মূল পার্থক্য হচ্ছে একটি এলসিডিতে প্রতি সেকেন্ডে অনেকবার ইমেজ তৈরী করতে (ইমেজ রিফ্রেশ বা নতুন করে আকঁতে) পারে কিন্তু ই-পেপারে একটি ইমেজ তৈরী করতে কয়েক সেকেন্ড সময় লাগে। যেমন, মে মাসের প্রদর্শিত ই-পেপারে ৮ কালারের ইমেজ তৈরী করতে ২ সেকেন্ড সময় লাগে এবং ৪০৯৬ কালারের ইমেজ তৈরী করতে ৮ সেকেন্ড সময় লাগে।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: